নোটিশ বোর্ড

সেবার মানের দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধনের...

সেবার মানের দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধনের স্বীকৃতিস্বরুপ বিভিন্ন সরকারী হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপকের অফিস পেলো স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতীয় পুরষ্কার ২০১৫ ৮...

  • Untitled-11
  • Inaguration 16263 2
  • Health Batayan 27 12 2015
  • Award 2015 1
  • 6 1
  • 5 3
  • 4 2
  • Hasina award ny
  • 2
  • 1
  • south asian health ministers
  • DSC 1194 1
  • banner 2
  • banner 1
  • 20140513 bangladeshbmw
  • web image2
  • laptop PDA distribution
  • DSC 0101
  • slider 3
  • DSC 0472
  • DSC 0360
  • Inaguration 16263 2
  • Inaguration 16263 2
  • 1 2

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাম-রুবেলা টিকাদান ক্যাম্পেইন ও ২১তম জাতীয় টিকা দিবসের উদ্বোধন করেন

গত ২৬শে জানুয়ারি, ২০১৪ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের বৃহত্তম হাম-রুবেলা টিকাদান কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম এ টিকাদান কর্মসূচি আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে। এই কর্মসূচির আওতায় নয় মাস থেকে ১৫ বছর বয়সী দেশের পাঁচ কোটি ২০ লাখ শিশুকে হাম ও রুবেলা’র টিকা দেওয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের এ যাবৎকালের সর্ববৃহৎ টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধনকালে বলেন,“একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশ থেকে হাম দূরীকরণ ও রুবেলা নিয়ন্ত্রণ এবং শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্য হারে কমিয়ে আনতে সরকার বদ্ধপরিকর। সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।" প্রধানমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন,সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় ২০১৬ সালের মধ্যে হাম ও রুবেলার টিকার হার শতকরা ৯৫ ভাগে উন্নীতের মাধ্যমে শিশুদের হাম দূরীকরণ অবস্থা বজায় রাখা এবং রুবেলা রোগের হার ২০১০ সালের তুলনায় শতকরা ৯০ ভাগে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আদর করে শিশুদের তার কোলে বসিয়ে টিকা দিয়ে শিশুদের টিকা নিতে উৎসাহিত করেন। এসময় শিশু সানজিদা কিছুতেই নামতে চায়নি তাঁর কোল থেকে। প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতা শেষে  তাঁর সঙ্গে সেও বলে ওঠে, "তোমরা সবাই টীকা নাও। কোন ভয় নাই। আমরা সুস্থ হব। সুন্দর জীবন পাব।" অন্যদের মধ্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম,স্বাস্থ্য সচিব এম এন নিয়াজ উদ্দিন,স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সিফায়েত উল্লাহ ছাড়াও বিভিন্ন দাতা সংস্থার প্রতিনিধিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।  এছাড়াও শিশুদের আনন্দ দিতে এবং টীকা নেয়ার সময় তাদের কষ্ট ভুলিয়ে দিতে সেখানে হাজির ছিল শিশুদের প্রিয় সিসিমপুরের নানা চরিত্র।