নোটিশ বোর্ড

সেবার মানের দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধনের...

সেবার মানের দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধনের স্বীকৃতিস্বরুপ বিভিন্ন সরকারী হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপকের অফিস পেলো স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাতীয় পুরষ্কার ২০১৫ ৮...

  • 6 1
  • 5 3
  • Hasina award ny
  • 2
  • 1
  • 4 2
  • Untitled-11
  • 20140513 bangladeshbmw
  • Health Batayan 27 12 2015
  • DSC 0101
  • 1 2
  • web image2
  • DSC 0472
  • DSC 0472
  • DSC 0472

স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে দেশে ‘জাতীয় স্বাস্থ্য তথ্যভান্ডার’ করা হবে বলে জানিয়েছেন সজীব ওয়াজেদ জয় (রিজিওনাল হেলথ ইনফরম্যাটিক্স কনফারেন্স: জুন ২৩-২৪, ২০১৪) হোটেলে “এমপসিবলঃ রিজিওনাল হেলথ ইনফরম্যাটিক্স কনফারেন্স” শীর্ষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়

গত ২৩-২৪শে জুন ঢাকাস্থ রূপসী বাংলা হোটেলে “এমপসিবলঃ রিজিওনাল হেলথ ইনফরম্যাটিক্স কনফারেন্স” শীর্ষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ২৩ জুন থেকে শুরু হওয়া দু’দিনব্যাপী দক্ষিণ এশীয় আঞ্চলিক স্বাস্থ্য ইনফরমেটিক্স সম্মেলনের অংশ হিসেবে এ সম্মেলন আয়োজিত হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউবিএস অপটিমাস ফাউন্ডেশন, জিআইজেড এর সহায়তায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস বিভাগ এ সম্মেলনের আয়োজন করে।এই সম্মেলন বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে বিভিন্ন উদ্ভাবন নিয়ে উদ্যোক্তাদের মধ্যে বিস্তারিত আলোচনার সফল সুযোগ সৃষ্টি করে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জনাব মোহাম্মদ নাসিম, এমপিএই সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

রিজিওনাল হেলথ ইনফরমেটিকস কনফারেন্স এর সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে দেশে ‘জাতীয় স্বাস্থ্য তথ্যভান্ডার’ করা হবে। সেই সঙ্গে ১০ বছর মেয়াদি ‘হেলথ কার্ড’ হবে উল্লেখ করে সজীব ওয়াজেদ বলেন, ‘স্বাস্থ্য তথ্যভান্ডারে মানুষের প্রাথমিক তথ্যগুলো থাকবে। জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্যভান্ডার গঠনে সরকার নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এর সহায়তায় স্বাস্থ্য তথ্যভান্ডার করা হবে। এর নিরাপত্তায় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় জাতীয় সাইবার নিরাপত্তা পরিকল্পনা করছে।
বর্তমান সরকারের ডিজিটাইজড প্রক্রিয়ার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা হচ্ছে উল্লেখ করে সজীব ওয়াজেদ বলেন, ‘আমরা যেভাবে ডিজিটালের দিকে যাচ্ছি, অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশ এর উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করছে। তারা আমাদের কাছে ট্রেনিং নেওয়ারও আগ্রহ প্রকাশ করেছে।’ এ সময় স্বাস্থ্য খাতে সরকারের বিভিন্ন সাফল্যের কথা তুলে ধরেন তিনি।
২০২১ সালের মধ্যে সব সরকারি প্রতিষ্ঠানকে ডিজিটাইজড করা হবে দাবি করে জয় বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য, ২০২১ সালের মধ্যে সব সরকারি অফিস ডিজিটাইজড করা। তখন সব ধরনের সরকারি সেবা প্রদান করা হবে অনলাইনে।’

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতেই সবচেয়ে বেশি যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে বলে জানান তিনি। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাত দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এই সম্মেলনে দক্ষিণ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ অংশ নেয়। এর মূল আলোচ্য বিষয় ছিল স্বাস্থ্যসেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার। এই সম্মেলনে বিশিষ্ট অতিথিদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ দীন মোহাম্মদ নূরুল হক এবং অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিঃ ও উন্নঃ) ও পরিচালক, এমআইএস-অধ্যাপক ডাঃ আবুল কালাম আজাদ।